বিকাল ৫:২৫ l সোমবার l ৬ই বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ l ১৯শে এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ l ৭ই রমজান, ১৪৪২ হিজরি l গ্রীষ্মকাল
তাড়াশে কাল বৈশাখী ঝরে ফসলি জমিতে বেপক ক্ষতি

তাড়াশে কাল বৈশাখী ঝরে ফসলি জমিতে বেপক ক্ষতি

মো. আলী আক্কাছ তাড়াশ প্রতিনিধি দৈনিক বাংলাদেশের সংবাদ

খাদ্য শস্য ভান্ডার খ্যাত চলনবিলের তাড়াশ উপজেলায় কৃষকের সপ্নের মাঠে কাল বৈশাখীর ছোবল। এতে ক্ষতিগ্রস্থ হবে অত্র এলাকার হাজারো কৃষক। জানা গেছে, গত রোববার বিকেলে চলনবিলের তাড়াশ উপজেলার উপর দিয়ে বয়ে যায় কাল বৈশাখী ঝড় ও হালকা মাঝারি বৃষ্টি। প্রায় ঘন্টা ব্যাপী ওই ঝড় আর হালকা মাঝারি বৃষ্টিতে সদ্য ফুলে বের হওয়া বোরো ধান মাটিতে নূয়ে পড়েছে। কৃষকদের সাথে কথা বলে জানা যায়, ধান সবেমাত্র ফুলে বের হচ্ছে। এই অবস্থায় ধান গাছ মাটিতে নূয়ে পড়লে ধানে চিটা হবে। এতে ফলন বির্পযয় হবে। চলনবিলের তাড়াশ উপজেলার বিনসাড়া গ্রামের কৃষক মো: ইব্রাহীম হোসেন, আসানবাড়ি গ্রামের খবির উদ্দিন ও কাজিপুর গ্রামের আব্দুল হাকিমসহ একাধিক কৃষক জানান, রোববারের ঝড়ে কম বেশি সব ধানের ক্ষতি হবে। তবে মিনিকেট ধানের বেশি ক্ষতি হয়েছে। তারা আরো জানায় অন্য ধান গাছের তুলনায় মিনিকেট ধান গাছ দূর্বল এবং আগাম জাতের তাই মিনিকেট ধান বেশি ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। ঝড়ে মাঠের সব মিনিকেট ধান মাটিতে নূয়ে পড়েছে। এতে প্রতি বিঘায় ২ মন থেকে ৪ মন ধান ফলন কম হওয়ার আশংকা করছেন ভুক্তভোগীরা তাড়াশ উপজেলা কৃষি অধিদপ্তর সূত্রে জানা যায়, এবছর উপজেলার ৮ টি ইউনিয়ন ও ১ টি পৌরসভায় ২২ হাজার ৬’শ ৬০ হেক্টর জমিতে বোরো চাষের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছিল। অর্জিত হয়েছে ২২ হাজার ৩’শ ১৫ হেক্টর। এরমধ্যে মিনিকেট ধান আবাদ হয়েছে ৩ হাজার হেক্টর। তাড়াশ উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ লুৎফুন্নাহার লুনা জানান, মিনিকেট ধান আগাম জাতের ও এর গাছ অন্য ধান গাছের তুলনায় দূর্বল । রোববারের ঝড়ে কিছু কিছু মাঠের মিনিকেট ধান মাটিতে নূয়ে পড়েছে। ফলে একটু ফলন বির্পযয় হতে পারে। ###

অনুসন্ধান করুন

পুরাতন নিউজ দেখুন

© All rights reserved © 2017 dailybsbd.com

Desing & Developed BY লিমন কবির